ত্বক থেকে চুলের যত্নে কাজে লাগান ভাতের মাড়!

বেশিরভাগ ক্ষেত্রে ভাতের মাড় ফেলে দেওয়া যায়। ভাত ক্রিসপি করতে সবাই ভালোভাবে চালের মাড় ছিটিয়ে দিল। অনেকেই তাজা ভাতের বদলে শরীর পরিষ্কার রাখতে সময় নেন। 


কারণ যখন ভাতে স্টার্চ থাকে, যেমন এটি খাওয়া পেট এবং শরীরকে ভারী করে, ঠিক একইভাবে স্টার্চ দিয়ে নিয়মিত ভাত খেলেও দ্রুত মোটা হওয়ার ভয় থাকে। 

যাইহোক, আপনি এটি চালের মাড়কে পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে পাতলা না করে অনেক উপায়ে ব্যবহার করতে পারেন। ত্বক ও চুলের যত্নে ভাতের মাড় ব্যবহার করুন।

 ফল মিলবে যাদুর মতো। আসুন জেনে নিই বিভিন্ন দৈনন্দিন কাজে চালের মাড় এর আশ্চর্যজনক ব্যবহার 

1) যদি আপনি দিনে অন্তত দুবার গোসলের পানিতে ভাতের মাড় যোগ করে স্নান করতে পারেন, তাহলে অস্বস্তিকর জ্বালা, চুলকানি এবং ত্বকের ফুসকুড়ি সহজেই উপশম করা যায়।

2) ব্রণের সমস্যা আদৌ কমে না? স্টার্চ ঠান্ডা হতে দিন এবং তুলা দিয়ে ত্বকের ব্রণপ্রবণ এলাকায় লাগান। আপনি যদি দিনে অন্তত ২- 2-3 বার এভাবে আপনার ত্বকের যত্ন নিতে পারেন, তাহলে ব্রণ এবং ফুসকুড়ির মত সমস্যা দ্রুত সেরে যাবে।

3) যদি আপনি ত্বকের স্টার্চ ঠান্ডা করতে পারেন এবং তুলা দিয়ে মুখ ও হাত-পায়ের রোদে পোড়া জায়গায় নিয়মিত লাগাতে পারেন তাহলে ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি পাবে।

 আপনি যদি এভাবে আপনার ত্বকের যত্ন নিতে পারেন, তাহলে আপনার ত্বক সতেজ থাকবে এবং আপনার ত্বক আর্দ্র থাকবে। এছাড়াও, ভাতের মাড় ত্বকের হাইপারপিগমেন্টেশন এবং ত্বকে বয়সের প্রভাব রোধে খুবই কার্যকর!

4) চালের গুঁড়ায় জল যোগ করুন এবং এটি একটু পাতলা করুন। শ্যাম্পু করার পর ভাতের মাড় দিয়ে চুল তিন মিনিট রেখে ভালো করে ধুয়ে নিন। 

চুল ভাঙার মতো সমস্যা মোকাবেলায় এই পদ্ধতিটি খুবই কার্যকর। এছাড়াও, এই পদ্ধতি শুরু থেকেই চুলকে শক্তিশালী এবং চকচকে করতে সাহায্য করে।

এ ছাড়া ভাতের মাড় শরীরে অপুষ্টির সমস্যা মোকাবেলায় খুবই উপকারী।

Post a Comment

Previous Post Next Post

Contact Form