আনুন হাই ব্লাড প্রেশার ৩০ মিনিটের ব্যায়ামে কমিয়ে নেই



হাই ব্লাড প্রেশার, উচ্চ রক্তচাপ বা হাইপারটেনশনকে বলা হয় সাইলেন্ট কিলার বা নীরব ঘাতক। ছোট আর্টারি বা আর্টেরিয়ল নামের রক্তনালীগুলো সংকুচিত হওয়ার কারণে সাধারণত হাই ব্লাড প্রেশার দেখা যায়। বার্ধক্য, নিষ্ক্রিয় জীবনযাপন এবং অতিরিক্ত ধূমপান ও মদ্যপানের কারণে এমনটা হতে পারে।



হাই ব্লাড প্রেশার থেকে অন্যান্য রোগ দেখা দেয় যেমন স্ট্রোক, ব্লাড ক্লট, আর্টারি ড্যামেজ, কিডনি ফেইলিওর বা হার্ট ফেইলিওর। সঠিক খাদ্যভ্যাস এবং প্রতিদিন মাত্র ৩০ মিনিটের ব্যায়াম ব্লাড প্রেশার নিয়ন্ত্রণে রাখতে পারে। নিয়মিত ব্যায়াম না করাটা হাই ব্লাড প্রেশারের ঝুঁকি বাড়ায়। প্রতিদিন সকালে আপনি এমন কিছু ব্যায়াম করতে পারেন যা দ্রুতই ব্লাড প্রেশার নিয়ন্ত্রণে আনতে পারে।

১) হাঁটা
হাঁটা হলো মাঝারি মানের একটি ব্যায়াম। জোরে হাঁটলে আপনার পালস রেট বাড়বে ও আপনি সহজে নিশ্বাস নিতে পারবেন। এ ছাড়া উঁচু-নিচু জায়গায় হাঁটা বা সিঁড়ি দিয়ে ওঠানামা করাটাও উপকারী।

২) ভারোত্তোলন
ওয়েইট ট্রেইনিং বা ভারোত্তোলন বেশ ভারী একটি ব্যায়াম। তা রক্তচাপ যেমন নিয়ন্ত্রণে রাখে, তেমনি সার্বিক স্বাস্থ্যের উপকারে আসে। এতে ওজন কমে ও পেশী সুগঠিত হয়।

৩) সাইক্লিং
সকাল সকাল সাইকেল চালানোটা সারা দিনই শরীর ভালো রাখতে পারে ও ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখতে পারে। এ ছাড়া হৃদযন্ত্রের স্বাস্থ্যও ভালো রাখে সাইক্লিং।

৪) অ্যারোবিকস
অ্যারোবিকস একটি হাই ইনটেনসিটি ব্যায়াম। তা হৃদরোগের ঝুঁকি কমায়, রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখে ও শরীরে খারাপ কোলেস্টেরল কমায়। এ ছাড়া তা পেটের মেদ কমাতে পারে। অ্যারোবিকসের জন্য বাসা থেকে বের হওয়ার দরকার হয় না, এমনকি কোনো যন্ত্রেরও দরকার হয় না।

৫) যোগব্যায়াম
উচ্চ রক্তচাপের পাশাপাশি আরও অনেক ক্রনিক রোগ দূরে রাখতে পারে ইয়োগা বা যোগব্যায়াম। অনেকের উচ্চ রক্তচাপের অন্যতম কারণ হয়ে থাকে স্ট্রেস। স্ট্রেস কমাতে দারুণ কাজে আসে ইয়োগা।



সূত্র: এনডিটিভি

No comments

Powered by Blogger.