পর্নো তারকাদের মিলনমেলা



যুক্তরাষ্ট্রের লাস ভেগাস। নামের মধ্যেই যেন অন্য রকম এক উন্মাদনা। এই লাস ভেগাসে রাত নেমে এলে তা যেন সজীব হয়ে ওঠে। ক্যাসিনো, বার- সবকিছুতে উপচে পড়ে মানুষের ভিড়। এরই বাইরেও রয়েছে এক অন্ধকার জগৎ। স্থানীয়ভাবে তাকে সেইভাবে দেখা হয় না। আছে দেহপসারিণীদের বিকিকিনি। আলোতে ঝলসে উঠছেন কোনো বারে কোনো বিবস্ত্র নর্তকী।
এ আর নতুন কিছু নয়। তবে সেই লাস ভেগাসে এবার একত্রিত হয়েছেন কমপক্ষে ৫০০ পর্নো তারকা। আর জড়ো হয়েছেন ৫০,০০০ ভক্ত। বার্ষিক ‘এভিএন এডাল্ট এন্টারটেইনমেন্ট এক্সপো’ উপলক্ষে সেখানে বসেছে এই আসর। এতে যোগ দেয়া ভক্তদের সঙ্গে ওইসব পর্নো তারকারা শরীরকে উন্মুক্ত করে দিচ্ছেন। তাদের সঙ্গে ‘টোয়ার্ক’ নামের নাচ নাচছেন। নিতম্বদেশ দুলিয়ে যৌন উত্তেজক নাচকে এমন নামে ডাকা হয়। এ উৎসব শুরু হয়েছে শুক্রবার। এর ক্লাইম্যাক্স বা চূড়ান্ত দিন ছিল শনিবার। এ রাতেই সেখানে জমে ওঠার কথা সবচেয়ে রমরমা ব্যবসা। বৃটিশ একটি ট্যাবলয়েড পত্রিকার অনলাইন সংস্করণে এ খবর প্রকাশিত হয়েছে। এতে বলা হয়েছে, টানা সাত বছরের মতো এবারও হচ্ছে এই উৎসব। যৌনতা বিষয়ক এই উৎসব বিশ্বের মধ্যে সবচেয়ে বৃহৎ।
লাস ভেগাসের হার্ড রক হোটেলে এবার বসে আসর। তাতে যোগ দেন বিশ্বের পর্নো তারকাদের মধ্যে বাছাই করা সুন্দরীদের মধ্যে আরো বেশি আকর্ষণীয় সুন্দরীকে। এমন তারকার মধ্যে রয়েছেন গিনা ভ্যালেন্টিনা, কিসা সিনস, জোয়ানা অ্যানজেল, জিল ক্যাসিডি, আবেলা ডেঞ্জার, মারলে ব্রিঙ্কস, কারমা আরএক্স, শেরিডান লাভ, টিয়া কাই, ভিকি চেজ, টিয়ানা ট্রাম্প, রিলে রেইড, আবিগেইল ম্যাক, কাটি মরগান, অ্যাথেনা ফারিস, এমিলি উইলিস, পর্নো ছবির প্রযোজক/পরিচালক হুয়ান জর্ডান প্রমুখ। এ উৎসবে পর্নো জগতের বিভিন্ন খাতে সেরাদের স্বীকৃতি দেয়ার কথা। তার মধ্যে আছে টাইটেল, ব্যক্তিবিশেষ, ভূমিকা রাখা কোম্পানিগুলো এবং এ খাতে অনবদ্য ভূমিকা রাখাদের। আয়োজকরা বলেছেন, এবারের উৎসবই হবে এ যাবৎকালের সবচেয়ে বড় অনুষ্ঠান। এ সময়ে পর্নো তারকাদের কাছ থেকে অটোগ্রাফ সংগ্রহ করবেন ভক্তরা।

No comments

Powered by Blogger.